ই-পাসপোর্ট ফি

0
1373
ফাইল ছবি

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, পাঁচ বছরের মধ্যে দেশের সব মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি)-কে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত ই-পাসপোর্ট করা হবে।

সোমবার স্পিকার ডক্টর শিরীন শারমীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এ কথা জানান। ট্রেজারি বেঞ্চ থেকে শামসুন নাহারের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী সংসদে এ কথা জানান। তিনি জানান, ই-পাসপোর্টের পাশাপাশি এমআরপি চালু থাকবে। মন্ত্রী বলেন, ঢাকায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তিনটি ই-পাসপোর্ট চালু করা হয়েছে। আগামী ১৮ মাসের মধ্যে পর্যায়ক্রমে সব বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিস এবং আঞ্চলিক পাসপোর্ট অন্যগুলোতে ই-পাসপোর্ট চালু করা হবে।

আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানান, বাংলাদেশের আবেদনকারীদের জন্য ৫ বছর মেয়াদী ৪৮ পৃষ্ঠার সাধারণ ই-পাসপোর্টের ফি ৩ হাজার টাকা। জরুরী ৫ হাজার ৫শ’ টাকা এবং অতিজরুরী ৭ হাজার ৫শ’ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া ১০ বছর মেয়াদী সাধারণ ই-পাসপোর্ট ৫ হাজার টাকা, জরুরী ৭ হাজার এবং অতিজরুরী ৯ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

মন্ত্রী জানান, ৫ বছর মেয়াদী ৬৪ পৃষ্ঠার সাধারণ ই-পাসপোর্টের ফি ৫ হাজার ৫শ’ টাকা, জরুরী ৭ হাজার ৫শ’ এবং অতিজরুরী ১০ হাজার ৫শ’ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া ১০ বছর মেয়াদী ৬৪ পৃষ্ঠার সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ৭ হাজার, জরুরী ৯ হাজার এবং অতিজরুরী ১২ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আরও জানান, প্রবাসীদের জন্য ৫ বছর মেয়াদী ৪৮ পৃষ্ঠার সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ১শ’ মার্কিন ডলার ও জরুরী ১৫০ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। একই ক্যাটাগরির ১০ বছর মেয়াদী ই-পাসপোর্টের জন্য ১২৫ মার্কিন ডলার ও জরুরী ১৭৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে।

শ্রমিক ও ছাত্রদের জন্য ৫ বছর মেয়াদী ৪৮ পৃষ্ঠার সাধারণ ই-পাসপোর্টের জন্য ৩০ ও জরুরী ৪৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে।