কম যান না মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রীও!

দুর্ব্যবহার করলেন নারী সাংবাদিকের সাথে

0
1221
ফাইল ছবি

প্রেসিডেন্টের দেখানো পথে হাঁটছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রীও। ইউক্রেন ইস্যুতে ট্রাম্প প্রশাসনের দৃষ্টিভঙ্গী জানতে চাইলে নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারান মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। ছেড়ে কথা বলেননি নারী সাংবাদিককেও। তাদের প্রশ্ন শুনে মেজাজ হারিয়ে অশোভন ভাষা ব্যবহারের পাশাপাশি করেছেন চিৎকার চেঁচামেচি।

এএফপি জানিয়েছে, শুক্রবার ভোরে এনপিআর রেডিওকে সাক্ষাতকার দেয়ার সময় তিনি এমন আচরণ করেন। সাক্ষাতকারে অধিকাংশ কথাই হচ্ছিল ইরান প্রসঙ্গে। বেশ ভালই চলছিল সময়টা। কিন্তু শেষ দিকে এসে ইউক্রেন প্রসঙ্গ এলেই ঘটে সব বিপত্তি। নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ হারান মাইক পম্পেও।

ইউক্রেনে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত মারিয়া ইয়োভানোভিচকে সুরক্ষা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন মাইক পম্পেও… এমন অভিযোগের অবতারণা করেন সাংবাদিক মেরি লুইস কেলি। জানতে চাইলেন, মারিয়া ইয়োভানোভিচের কাছে দুঃখপ্রকাশ করা কি আপনার দায়িত্ব ছিল না? কেলির এমন প্রশ্নেই দুর্বিনীত হয়ে ওঠেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি জবাব দিলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিটি কর্মকর্তাকে সমর্থন করেছেন তিনি।

এরপর কেলি সরাসরি প্রশ্ন করেন, আপনি মারিয়াকে কখন প্রকাশ্যে সমর্থন দিয়েছেন? পম্পেও জানালেন, আজ আমি যা বলতে যাচ্ছি, তার সবই বলে ফেলেছি।

পরে কেলি তার সহকর্মীদের জানান, তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। কিন্তু কক্ষ থেকে বের হওয়ার সময় পম্পেও তার দিকে ক্রুদ্ধ দৃষ্টিতে তাকিয়েছেন। এরপর কেলিকে রেকর্ডার ছাড়াই পম্পেওর ব্যক্তিগত কক্ষে নিয়ে যান পররাষ্ট্র দফতরের একজন কর্মী। সেখানে পম্পেও তার জন্য অপেক্ষা করছিলেন।

কেলি বললেন, তিনি (পররাষ্ট্র মন্ত্রী) আমার সাথে চিৎকার চেঁচামেচি করেন। সাক্ষাতকার নেয়ার পুরো সময়ই এ অবস্থা চলছিল, জানালেন সাংবাদিক মেরি লুইস কেলি।