কাঠগড়ায় মিয়ানমার

0
481

রোহিঙ্গাদের ওপর দমন-পীড়নের জন্য জাতিসংঘের সর্বোচ্চ আদালতে বিচারের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে মিয়ানমার।

সোমবার ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসে (আইসিজে) মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে মামলা করেছে গাম্বিয়া।

এর মধ্য দিয়ে রোহিঙ্গা নিপীড়নের জন্য সমালোচনার মুখে থাকা মিয়ানমার প্রথম আন্তর্জাতিক কোনো আদালতে বিচারের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে।

৪৬ পৃষ্ঠার অভিযোগে রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গা মুসলমানদের নির্বিচারে হত্যা, ধর্ষণ এবং তাদের আবাস ধ্বংসের কথা বলেছে ওআইসিভূক্ত দেশ গাম্বিয়া।

রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিচারে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতেও (আইসিসি) মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।

আইসিজে মামলাটি বিচারের জন্য গ্রহণ করলে এটাই হবে গণহত্যার নিজস্ব তদন্তে আইসিজের প্রথম উদ্যোগ। এর আগে তদন্তের ক্ষেত্রে তারা অন্য সংস্থার উপর নির্ভর করত।

আইসিজের বিধি অনুসারে, জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত এক দেশ অন্য দেশের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আইন ভঙ্গের অভিযোগ তুলতে পারে।

গণহত্যা প্রতিরোধ ও এর শাস্তি বিধানে ১৯৮৪ সালে স্বাক্ষরিত কনভেনশন লঙ্ঘনের অভিযোগ করা হয়েছে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে। ১৯৫৬ সালে ওই ‘জেনোসাইড কনভেনশনে’ সই করে মিয়ানমার।

রোহিঙ্গা গণহত্যার জন্য মিয়ানমারকে বিচারের আওতায় আনতে হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ ১০টি সংগঠন গাম্বিয়াকে সহায়তা করছে।

গত মার্চে ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসে (আইসিজে) মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে সর্বসম্মত প্রস্তাব গ্রহণ করেছে ইসলামী সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি)। আবুধাবিতে ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের ৪৬তম বৈঠকের শেষদিনে প্রস্তাবটি অনুমোদিত হয়।

গাম্বিয়ার নেতৃত্বে ১০ সদস্যবিশিষ্ট মন্ত্রী পর্যায়ের উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন কমিটি প্রস্তাব পাসের প্রক্রিয়া শুরু করে। ১০ ফেব্রুয়ারি বানজুলে গাম্বিয়ার কো-চেয়ারে কমিটির প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে আইনি অধিকার প্রতিষ্ঠার সুপারিশ করা হয়। বিশেষ করে গণহত্যা সংক্রান্ত কনভেনশন এবং অপরাপর কনভেনশন বাস্তবায়ন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

২০১৬ সালের অক্টোবরে মিয়ানমারের একটি সীমান্তচৌকিতে জঙ্গি হামলা হলে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীর নয়জন সদস্য নিহত হন। এরপর মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা সংখ্যালঘু মুসলমানদের ওপর নিষ্ঠুর নিপীড়ন চালায়। ওই সময়ে ৭৫ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।

২০১৭ সালের ২৪ আগস্ট সেনা চৌকিতে ফের হামলা হয়। এর ফলে চালানো সেনা অভিযানের কারণে ২৫ আগস্ট থেকে রোহিঙ্গারা দলে দলে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে থাকে। ওই সময়ে মানবিক কারণে বাংলাদেশ সীমান্ত খুলে দেয়। সে সময় ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নেন। সব মিলিয়ে বাংলাদেশে বর্তমানে মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা ১১ লাখের বেশি।