ত্রিপোলিকে ঢাকার বার্তা

হত্যাকাণ্ডের বিচার ও ক্ষতিপূরণ দাবি

0
313
বাঁয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন-এর ফাইল ছবি। ডানে, লিবিয়ার মিজদায় নিহত বাংলাদেশিদের মরদেহ

লিবিয়ায় মানব পাচারকারীরা ২৬ জন বাংলাদেশী নাগরিককে হত্যা ও ১১ জনকে আহত করার ঘটনায় দেশটির কাছে এই হত্যায় জড়িত অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করেছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি হতাহতদের জন্য ক্ষতিপূরণেরও দাবি জানানো হয়েছে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে।

রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা বাসস’কে এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডক্টর একে আবদুল মোমেন বলেছেন, লিবিয়ায় আমাদের মিশন ত্রিপোলি সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে এবং জরুরি তদন্ত ও হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছে।

তিনি বলেন, লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাস জাতিসংঘ স্বীকৃত ত্রিপোলিভিত্তিক গভর্মেন্ট অব ন্যাশনাল অ্যাকর্ডকে (জিএনএ) এই হত্যাযজ্ঞের সঙ্গে জড়িতদের পরিচয় বাংলাদেশকে জানাতে বলেছে।

ডক্টর মোমেন বলেন, ২৬ বাংলাদেশীর মৃতদেহ দেশে নিয়ে আসার জন্য ঢাকা থেকে ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম)-এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। দুষ্কৃতকারীরা এই ২৬ বাংলাদেশীর সঙ্গে আফ্রিকান ৪ ব্যক্তিকেও হত্যা করেছে।

মন্ত্রী বলেন, লিবিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দুষ্কৃতকারীদের গ্রেফতার করে শাস্তির মুখোমুখি করার নির্দেশ দিয়েছে।

তবে মোমেন বলেন, রাজধানী ত্রিপোলি থেকে ১৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে মিজদা শহরে এই হত্যাকান্ড ঘটেছে, এটি গোলযোগপূর্ণ এলাকা, মাত্র এক সপ্তাহ আগে প্রতিপক্ষ বাহিনীর সঙ্গে লড়াইয়ের পর জিএনএ এই শহরের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, ত্রিপোলি থেকে পাওয়া খবরে জানা যায় হটিয়ে দেয়া প্রতিপক্ষ বাহিনী দুই দিন আগেও বোমা হামলা চালিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে অপরাধীদের কখন কিভাবে আটক করা যাবে সে বিষয় ধারণা করা কঠিন।

বৃহস্পতিবার রাতে ২৬ বাংলাদেশীসহ ৩০ জনকে উপকূলীয় শহর মিজদায় জিম্মি দশায় গুলি করে হত্যা করা হয়, এ হামলায় অপর ১১ জন আহত হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, ত্রিপোলি থেকে সব শেষ খবরে জানা যায়, বাংলাদেশ মিশন লিবিয়ার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমে রাতেই আহত বাংলাদেশীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ত্রিপোলির হাসপাতালে নিয়ে এসেছে।

মোমেন বলেন, আহত ১১ বাংলাদেশীর মধ্যে ৫ জনের অবস্থা গুরুতর। তবে, সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা অপর ৬ জন ঝুঁকিমুক্ত বলে জানিয়েছেন। গুরুতর আহত ৫ জনের মধ্যে ৩ জনের সার্জারি হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, নিহত ২৬ জনের লাশ বর্তমানে মিজদা হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ মিশন লিবিয়া সরকারের ডিরেক্টর জেনারেল অব হেলথ এন্ড আইওএম’-এর সঙ্গে যোগাযোগ করেছে, তারা আহত বাংলাদেশীদের চিকিৎসা সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে।