পুলিশের জালে কোটিপতি পিয়ন

0
1424

অবশেষে কোটিপতি পিয়ন ইয়াছিন মিয়া আটকা পড়েছে পুলিশের জালে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের অফিস সহকারী ইয়াছিন সোনালী ব্যাংকের ভূয়া চালান তৈরি করে সরকারি টাকা আত্মসাৎ করে কোটিপতি বনে যান।

শুক্রবার ভোর রাতে সদর থানা পুলিশ তাকে আটক করা হয়। আটকের খবর নিশ্চিত করেছেন সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেলিম উদ্দিন।

জেলা সদরে তিনটি বাড়ির পাশাপাশি তিন স্ত্রী রয়েছে ইয়াছিনের। ১৯৯৭ সালে সদর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে অস্থায়ীভিত্তিতে নিয়োগ পান ইয়াছিন মিয়া। ২০০৬ সালে তার চাকরি স্থায়ী হয়। এর মধ্যেই তাকে জেলার আশুগঞ্জ ও নাসিরনগর উপজেলায় বদলী করা হয়। কিন্তু “ভিন্ন পন্থা”য় তিনি আবারও সদরে ফিরে আসেন।

সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে কোটিপতি পিয়ন ইয়াছিনকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হলে গা ঢাকা দেন তিনি।

জানা যায়, বিভিন্ন সময় অফিসের নকল, তল্লাশি ও জমি রেজিস্ট্রেশন ফিসহ চালানের টাকা তাকে দিয়ে সোনালী ব্যাংকের স্থানীয় শাখায় পাঠানো হতো। ব্যাংকের ভূয়া চালান তৈরি করে তা অফিসে জমা দিত। অন্যদিকে, পুরো টাকাটাই আত্মসাৎ করতেন ইয়াছিন।

কিছুদিন আগে অফিসিয়াল অডিটে কোটি টাকা লাপাত্তা হওয়ার বিষয়টি ধরা পরে। অভ্যন্তরীণ তদন্তে ঈয়াসিন মিয়ার নাম সামনে আসে। এরপরই তিনি গা ঢাকা দেন। গা ঢাকা দেয়ার ঘটনা জানাজানি হলে গত ২৯ নভেম্বর তার বিরুদ্ধে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন সদর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার মো. মোস্তাফিজুর রহমান।

পুলিশী তৎপরতায় আজ ভোর রাতে ইয়াছিন মিয়া আটক হয়।