ফেরিতে ঠেকানো যাচ্ছে না…

0
273

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে লঞ্চ ও স্পিড বোট চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ পরিস্থিতিতে ফেরিতে যাত্রী চাপ বেড়েছে। কোনভাবেই মানুষকে ঠেকানো যাচ্ছে না। গাদাগাদি করে সবাই ফেরিতে করে নদী পার হচ্ছে। যাত্রীদের কারণে জরুরী পরিষেবা পরিবহন বা অ্যাম্বুলেন্সও ফেরিতে উঠতে পারছে না।

দেশের দক্ষিনাঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ ভীড় জমিয়েছে নদীপাড়ে। ফেরি ঘাটে পৌঁছুলেই শতশত যাত্রী নামছেন।

মাদারিপুর থেকে প্রতিনিধি জানালেন, সামাজিক দূরত্ব বলে কিছু নেই। কর্তৃপক্ষ অনুরোধ করেও ফেরিতে জরুরী পণ্যের গাড়ি বা অ্যাম্বুলেন্স তুলতে পারছেন না।

ঘাটে নেমে এসব যাত্রীরা বাস বা মাইক্রোবাস না পেয়ে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে মোটরসাইকেলে করে বরিশাল বা পটুয়াখালী যাচ্ছেন।

অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিসি)-এর কাঁঠালবাড়ি ঘাটের ব্যবস্থাপক আবদুল আলীম জানিয়েছেন, জরুরী সেবাকাজে ব্যবহৃত পরিবহনের জন্য ১৩টি ফেরি চালু আছে। কিন্তু ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের চাপে ফেরিতে গাড়ি তোলা যাচ্ছে না। দুই পাড়েই শত শত গাড়ি আটকে আছে।

তিনি বলেন, যাত্রীরা কোন সামাজিক দূরত্ব মানছেন না। গাদাগাদি করে ফেরিতে উঠছেন। চাকরির কারণে আমরা ফেরি চালাতে বাধ্য হচ্ছি। এ অবস্থায় ফেরির চালক ও কর্মচারিরা মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছেন।