ব্যারিস্টার সুমনের পদত্যাগ

0
1060

মুক্তিযুদ্ধের সময় সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য ঘটিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন পদত্যাগ করেছেন। তিনি নিজেই পদত্যাগপত্র পৌঁছে দিয়েছেন চিফ প্রসিকিউটরের কাছে।

বৃহস্পতিবার তিনি পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। পদত্যাগপত্র জমা দেয়ার বিষয়টি ব্যারিস্টার সুমন নিজেই গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেন।

পদত্যাগের কারণ হিসেবে আলোচিত এই আইনজীবী জানান, বিভিন্ন সামাজিক কাজে জড়িয়ে যাওয়ায় ট্রাইব্যুনালে সময় দিতে পারছেন না। তাই ট্রাইব্যুনালে সময় না দিয়ে রাষ্ট্রের কোষাগার থেকে বেতন নেয়া অনৈতিক বিবেচনা করছেন। এ কারণে তিনি পদত্যাগ করেছেন।

ব্যারিস্টার সুমন তার পদত্যাগপত্রে উল্লেখ করেন, ‘২০১২ সালের ১৩ নভেম্বর আমি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যোগদান করি। যোগদানের পর থেকে বিভিন্ন মামলা অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে পরিচালনা করেছি।

ইদানিং বিভিন্ন সামাজিক স্বেচ্ছাসেবামূলক কাজে নিবিড়ভাবে জড়িয়ে যাওয়ায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের মতো রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে সম্পূর্ণ নিষ্ঠার সাথে সময় দিতে পারছি না।

এ অবস্থায় সরকারি কোষাগার থেকে বেতন নেয়াকে আমি অনৈতিক বলে মনে করি। এ কারণে আমি বর্তমান পদ থেকে অব্যাহতি প্রার্থনা করছি।’

ব্যারিস্টার সুমন বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিয়ে ফেসবুকে সবসময়ই সরব থাকেন। ফেনীর মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফীর একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন সোনাগাজী থানার সে সময়কার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন। পুলিশ কর্মকর্তার এমন আচরণে তার (ওসি মোয়াজ্জেম) বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করেন ব্যারিস্টার সুমন।

তবে ব্যারিস্টার সুমন ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে করা একটি মামলার আসামিও। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কটূক্তির অভিযোগে রাজধানীর ভাষানটেকের গৌতম কুমার নামের এক ব্যক্তি মামলাটি করেন।