রশনির সহযোগিতা প্রয়োজন

0
1507

‘আমি তিন বছর ধরে অসুস্থ। চিকিৎসা চালাতে গিয়ে আমার পরিবার আজ নিঃস্ব হয়ে গেছে। চিকিৎসা চালাতে আমি সবার সহযোগিতা চাই। সুস্থ জীবনে ফিরতে চাই।’

কথাগুলো বলেছেন, কুটিরশিল্প উদ্যোক্তা, অভিনেত্রী, চিত্রনাট্য নির্মাতা এবং ময়মনসিংহ জয়নুল ইনস্টিটিউটের চারুকলার শিক্ষার্থী রৌশন জাহান রশনি (৩৫)।

তিন বছর ধরে হার্ট, গলব্লাডার ও অ্যাজমায় ভুগছেন তিনি। একসময় যে মেয়েটি তার বাবাকে অর্থ দিয়ে সাহায্য করতেন, এখন নিজেকে মনে করেন অবসরপ্রাপ্ত বাবার পরিবারের বোঝা। নিজের অসুস্থতা কাটিয়ে উঠতে রশনি দানশীল ব্যক্তিদের কাছে চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা চাইছেন।

রশনি জানান, ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গলব্লাডারের স্টোন অপারেশনের সময় আমার কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়। চিকিৎসকরা বলেছেন, টানা আধঘণ্টা চেষ্টার পর আমার পালস পাওয়া যায়। এরপর থেকে আমি বিভিন্ন হাসপাতালে ঘুরছি, কিন্তু কেউই আমার চিকিৎসা চালাতে পারছে না।’

রশনি বলেন, ‘বেশ কিছু দিন আমি ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম। কিন্তু সেখানেও আমার অস্ত্রোপচারের তারিখ দিতে পারেনি।’

নিজের পরিবার সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমার বাবা একজন অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা। তার পেনশনের টাকায় সংসার চলছে। ছোট তিনটা ভাইবোন আছে। ওরা সবাই পড়াশোনা করছে। অনেক কষ্টে বাবা সংসার চালান। সেখানে আমার চিকিৎসার খরচ কীভাবে চালাবেন? আমি এখন ময়মনসিংহের বাড়িতে আছি। আমার সামনে এখন শুধুই অন্ধকার। কী যে করবো কিছুই বুঝতে পারছি না। ’

এই তরুণী বলেন, এর আগে আমার চিকিৎসার জন্য ঢাকার একটি হাসপাতালের সঙ্গে বাবা কথা বলেছিলেন। তখন তারা বলেছিল চিকিৎসার জন্য আনুমানিক ১১ লাখ টাকা খরচ লাগবে। তারা আরও বলেছিল— আমাদের অর্ধেক টাকা দিতে হবে। বাকিটা হাসপাতাল বহন করবে। কিন্তু আমরা তখন ওই হাসপাতালকে একটা টাকাও দিতে পারিনি। ফলে চিকিৎসা না করিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে বাধ্য হই।’

সমাজের প্রতিষ্ঠিত হৃদয়বান ব্যক্তি, কিংবা কোনও প্রতিষ্ঠান যদি রৌশন জাহান রশনিকে আর্থিক সহায়তা করতে চান, তাহলে তার এই মোবাইল নম্বরে বিকাশ করতে পারেন— ০১৭২৫৪০৬৬৬২। জনতা ব্যাংকে তার অ্যাকাউন্ট নম্বর— ০১০০১৬০৯৮৮৯৮০

তথ্য সূত্র : রেজাউল করিম রেজা, সাংবাদিক।