সুনাগরিক হওয়ার পরামর্শ

0
938

বিজয়ের এই মাসে সবাইকে সুনাগরিক হবার শপথ করার আহ্বান জানালেন ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম।

সোমবার বেলা ৩ টায় মহাখালীর বিটিসিএল (টি এন্ড টি মাঠে) ওয়ারলেস রোডে বিডি ক্লীন-এর আয়োজনে প্লাস্টিক বর্জ্য বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরিতে বিজয়ের মাসে সারাদেশ থেকে কুড়িয়ে আনা ৩০ লাখ পরিত্যক্ত বোতল নিয়ে ভিন্নধর্মী প্রদর্শণীর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

মেয়র আক্ষেপ করে বলেন, আমরা কতটা নির্লজ্জ হলে দামী দামী গাড়ি থেকে নেমেই ময়লাটা নিচে ফেলি। বিদেশে গেলে আমরা ময়লা নির্দিষ্ট স্থানে ফেলি কিন্তু দেশে আমরা যত্রতত্র ময়লা ফেলে দেশকে অপরিচ্ছন্ন করি। যে দেশে ৩০ লাখ শহীদ রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা এনে দিয়েছে, যে মাটিতে মুক্তিযুদ্ধের শহীদেরা ঘুমিয়ে আছেন, যে মাটিতে জাতির পিতা এবং তার পরিবারের সদস্যরা ঘুমিয়ে আছেন, সেই মাটিতে ময়লা ফেলা নির্লজ্জ জাতি বলেই সম্ভব। মেয়র আরও বলেন, আমরা যারা দামী দামী গাড়িতে চড়ি তারাই আবার গাড়ির গ্লাস খুলে রাস্তায় বোতল, টিস্যু, প্যাকেট, পলিথিন ফেলি, শহরকে ডাস্টবিন মনে করি। আর এর মাশুল দিত হয় গোটা নগরবাসীকে। আমরা সবাই তাদেরকে ধিক্কার জানাই।

প্লাস্টিক বর্জ্যের ভয়াবহতা তুলে ধরে মেয়র বলেন, একটি প্লাস্টিক বোত ডিকম্পোজ হতে প্রায় সাড়ে ৪শ’ বছর লাগে। এখন সারা পৃথিবীতে প্রায় ৯ দশমিক ৬ বিলিয়ন টন প্লাস্টিক বর্জ্য আছে, যার মাত্র ১০ শতাংশ পুণঃব্যবহারযোগ্য। তাহলে বাকি প্লাস্টিকের কী হবে? তিনি বলেন, গবেষকেরা বলছেন “২০৩০ সাল নাগাদ সাগরে মাছের থেকে প্লাস্টিক বর্জ্য বেশি হবে”। ঢাকা শহরে প্রতিদিন সাড়ে তিন হাজার টন বর্জ্য উৎপন্ন হয় যা ২০২১ সালে পাঁচ হাজার টনে উন্নীত হবে। তাই, এখনই সময় আসুন আমরা সচেতন হয়ে সবাই মিলে সবার ঢাকা গড়ে তুলি। নিজেকে একজন সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে হবে। একজন সুনাগরিকের গুলাবলী আমাদের জানতে হবে।

বিডি ক্লিন-এর স্লোগানের সাথে একমত হয়ে মেয়র উচ্চারণ করেন, “বিজয় দিবসের অঙ্গীকার, সচেতনভাবে হোক প্লাস্টিকের ব্যবহার।” “লাল-সবুজের বাংলাদেশ, ময়লাকে বলি না, দূষণের দিন শেষ”… এই স্লোগানকে ধারণ করে সবাই যার যার এলাকা, জলাধার, মাঠ, বাসা বাড়ি নিজে পরিষ্কার করলে এই শহর এমন থাকবে না।

বিডি ক্লিনের একজন চলাচল প্রতিবন্ধী সদস্য মাহফুজকে মঞ্চে ডেকে নিয়ে মেয়র বলেন, “এই মাহফুজ যদি দেশ পরিষ্কারের অংশ নিতে পারে তবে আমরা কেন পারবো না? আমরা নোংরা করবো আর মাহফুজ পরিষ্কার করবে, আমাদের জন্য এরচেয়ে লজ্জার আর কী হতে পারে?” তারপরও আমি বলতে চাই, এই মাহফুজরাই যথেষ্ট দেশ পরিষ্কারের জন্য, ওদের হাতেই বদলে যাবে আমাদের সোনার বাংলাদেশ।”

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হাই, ডিএনসিসির কাউন্সিলর মো. নাছির এবং দেওয়ান মান্নানসহ ডিএনসিসির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। # সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।